সাংবাদিক সরোয়ার অপহরণের ক্লু পুলিশের হাতে

সাপ্তাহিক আজকের সূর্যোদয়ের চট্টগ্রাম ব্যুরোর স্টাফ রিপোর্টার গোলাম সরোয়ার অপহরণের বেশকিছু ক্লু পেয়েছে পুলিশ। তবে তদন্তের স্বার্থে তা প্রকাশ করা হচ্ছে না। এমন তথ্য জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগর কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন।

তিনি বলেন, অপহৃত সাংবাদিক গোলাম সরোয়ার উদ্ধারের পর থেকে চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার অপহরণ ঘটনায় থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছিল, যেটির ভিত্তিতে এখন তদন্ত চলছে। তদন্ত কাজে সিএমপি’র চারটি টিম যুক্ত আছে। এরই মধ্যে গোলাম সরোয়ারের নিখোঁজ সময়ের মোবাইল ফোনের লোকেশন বের করা হয়েছে। এছাড়া যেখান থেকে গোলাম সরোয়ার নিখোঁজ হয়েছিলেন তার আশপাশের সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে।

এসব কিছু আলামত পর্যালোচনা করা দেখা হচ্ছে যে, আসলে সরোয়ারের অপহরণ ঘটনায় কারা ছিল। তদন্তে বেশ কিছু ক্লু এখন পুলিশের হাতে। এগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। কে বা কারা বা কিভাবে অপহরণ করেছিল তার সবকিছুই খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তদন্তের অগ্রগতির জন্য সাংবাদিক সরোয়ারের লিখিত অভিযোগ খুবই প্রয়োজন। সেটি পাওয়ার পর তদন্তকাজ অনেক বেশি সহজ হয়ে যাবে। ওসি মহসীন আরও বলেন, সরোয়ারের স্ত্রী থানায় লিখিত অভিযোগ করবেন বলে জানিয়েছেন। আমরা সেটির অপেক্ষায় আছি। এছাড়া সিএমপি কমিশনার স্যার এ বিষয়ে সার্বিক দিক নির্দেশনা আমাদের দিয়েছেন। আশা করছি খুব শিগগিরই রহস্য বের করতে পারব। নগর পুলিশের উপ-কমিশনার এসএম মেহেদী হাসান বলেন, সরোয়ার অপহরণ ঘটনাটি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তে বেশ কিছু বিষয় সামনে আসছে। আমরা সেগুলো তদন্ত করে দেখছি। আশা করি ঘটনার আগে পিছে যা কিছু রয়েছে তার সবকিছু খুব দ্রুত পরিষ্কার হবে।
প্রসঙ্গত, গত ২৮শে অক্টোবর রাতে নগরীর বেটারি গলির বাসা থেকে চন্দনাইশের বাড়িতে যাওয়ার পথে অপহরণের শিকার হন নিউজ পোর্টাল সিটিনিউজবিডি ডটকমের নির্বাহী সম্পাদক ও সাপ্তাহিক আজকের সূর্যোদয়ের চট্টগ্রাম ব্যুরোর স্টাফ রিপোর্টার গোলাম সারোয়ার।
চারদিন নিখোঁজ থাকার পর গত ১লা নভেম্বর চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড উপজেলার কুমিরার একটি রাস্তার পাশ থেকে তাকে উদ্ধার করেন স্থানীয় লোকজন। খবর পেয়ে পুলিশ সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করেন। পরবর্তীতে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। উদ্ধারের পর অচেতন অবস্থায় উদ্ধারকারী লোকজনের পা জড়িয়ে তিনি আর্তনাদ করেন, প্লিজ আমাকে মারবেন না, আমি আর নিউজ করব না। আমাকে ছেড়ে দেন। এই অপহরণ ও নিপীড়নের ঘটনায় ক্ষোভ ও আতঙ্ক ছড়িয়েছে চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের মাঝে। চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) নেতারা ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মঙ্গলবার সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীরের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন।

এ সময় সিইউজের সভাপতি মোহাম্মদ আলী বলেন, উদ্ধার পরবর্তী গোলাম সরোয়ারের কাছ থেকে যে বক্তব্য পাওয়া গেছে তা পেশাদার সাংবাদিকদের জন্য আতঙ্কের। কিন্তু ঘটনার ৮ দিন অতিবাহিত হলেও জড়িতদের গ্রেপ্তারে কোনো অগ্রগতি নেই। কিছুটা সুস্থ হয়ে ওঠা সাংবাদিক গোলাম সরোয়ার জানান, নিউজের কারণে তাকে অপহরণ করা হয়েছে। অপহরণকারীরা তাকে একটি আস্তানায় নিয়ে গিয়ে কাপড় দিয়ে হাত-পা ও চোখ বেঁধে নির্যাতন করেছে। তবে ঠিক কোন নিউজের কারণে তাকে অপহরণ করে নির্যাতন করা হয়েছে সেটা জানতে চাইলেও অপহরণকারীরা জানাননি বলে জানান।

Source link

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here